প্যানডেমিক ডায়রি ২২

শ্রাবণের একটি দুপুর চলে গেছ অনন্ত ঘুমে। আমার ঘুমের মধ্যে রোজ আসো স্বপ্নের মতো। প্রতিক্ষণ অলক্ষ্যে ছুঁয়ে থাকো অব্যক্ত ব্যথা ভিড়ের মধ্যেও রাখো আনমনা নির্জন একা। অতীত বলে কি কিছু হয় ? অনির্বাণ জেগে আছে তোমার চোখের সেই আলো তখন ছিল না কোনও কফিশপ পৃথিবীর বিশ্বায়ন , আন্তর্জাল। তখনও দুদ্দাড় কেঁপে উঠে দৌড়ে যেতাম মনে […]

শুশ্রূষা ও অন্ধকার (পর্ব পাঁচ)

(পূর্ব প্রকাশিতর পরে) জার্মানির চিকিৎসকদের “নাৎসি ডাক্তার” হয়ে ওঠার শুরু কবে থেকে? রাতারাতি সবাই, বা অন্তত চিকিৎসকদের একটা বড় অংশ, এমন নৃশংস নৈর্ব্যক্তিক “বিজ্ঞানী” হয়ে উঠলেন? দাবীটা আপাতদৃষ্টিতে অতিসরলীকৃত শোনালেও, ঠিক কোন পথে ব্যাপারটা সম্ভবপর হল, সেটাও তো খোঁজা জরুরী, তাই না?? সেই সময়ে চিকিৎসা ব্যাপারটা নাকি আপাত-বিজ্ঞানসম্মত হওয়ার আড়ালে নৈর্ব্যক্তিক এবং অমানবিক, অন্তত মানবতাবোধহীন, […]

ফ্রেডরিক গ্রান্ট বান্টিঙঃ কর্ম ও জীবন- পর্ব ২৭

২১শে ফেব্রুয়ারি ১৯৪১, বিমান দুর্ঘটনায় মারা গেলেন ডা. ফ্রেডরিক গ্রান্ট বান্টিঙ। বান্টিঙ মারা গেলে জনশূন্য প্রান্তরে উদ্ধারের আশায় একাকী অপেক্ষা করতে থাকেন পাইলট ম্যাকি। সারাটা দিন অতিবাহিত হয়ে গেল কিন্তু কোনও উদ্ধারকারী দল চোখে পড়ল না তাঁর। সন্ধ্যা নেমে এলো ধীরে ধীরে। ম্যাকি বুঝলেন, রাতের এই ঠান্ডার মধ্যে ভাঙ্গা বিমানের ভিতরে আশ্রয় নেওয়াই শ্রেয়, বিমান […]